ময়মনসিংহে দরপত্রের শিডিউল জমা দানে বাঁধা

 

স্টাফ রিপোর্টার।।
ময়মনসিংহে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স সৌরভ ব্রিক্স এর দরপত্রের শিডিউল জমা দানে বাঁধা দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় অজ্ঞাতনামা ১০/১২ জন কে অভিযুক্ত করে সওজ,সড়ক বিভাগ সহ কোতোয়ালি মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন মোঃ মাহবুবুল হক। গত ( ২৭ মে ) দুপুরে এ ঘটনাটি ঘটে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ২৬ মে কোতোয়ালী মডেল থানাধীন কাচিঝুলি আঞ্জুমান ঈদগাহ মাঠ সংলগ্ন সওজ, সড়ক বিভাগ, ময়মনসিংহ এর কার্যালয় হতে দরপত্র ক্রয় করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স সৌরভ ব্রিক্স। যার ইজারা কোটেশন নং-০১/কোটেশন/ইই/এমআরডি/২০২৩-২০২৪ (৭ম আহবান) বই নং-০০০৭০৮১, রশিদ নং-১০০। বিভিন্ন ব্যাংক হইতে ৪,৬০,০০,০০০/- (চার কোটি ষাট লক্ষ) টাকা বি.ডি কেটে টেন্ডারে অংশ গ্রহন করার জন্য প্রস্তুতি গ্রহন করে। ২৭ মে দরপত্রের শিডিউল জমা দেওয়ার দিন ধার্য ছিল। দরপত্র জমা দানে বাঁধা’র দরুন উক্ত টেন্ডারে অংশ গ্রহণ করতে পারেনি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স সৌরভ ব্রিক্স।

এ ব্যাপারে অভিযোগকারী মোঃ মাহবুবুল হক
বলেন, ‘বর্তমান সরকারের আমলে দরপত্রের শিডিউল জমা দানে বাঁধা দেয়ার ঘটনা বিরল।
তাই এ ঘটনায় তিনি বিস্মিত। ঘটনা সম্পর্কে তিনি বলেন, আমি একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী। আমার প্রতিষ্ঠানের নাম মেসার্স সৌরভ ব্রিক্স। গত ২৬/০৫/২০১৪ খ্রী. সওজ, সড়ক বিভাগ, ময়মনসিংহ এর কার্যালয় হতে দরপত্র ক্রয় করি।

পরবর্তীতে ইং ২৭/০৫/২০১৪ তারিখ বেলা অনুমান ১২.০০ টার সময় কোতোয়ালী মডেল থানাধীন কাচিঝুলি আঞ্জুমান ঈদগাহ মাঠ সংলগ্ন সওজ, সড়ক বিভাগ, ময়মনসিংহ এর কার্যালয়ে টেন্ডার দাখিল করার জন্য আমি সহ আমার পার্টনার ১। সুমন মীর(৩৮), ২। রাজন মীর (৩৬), উভয় পিতা-নূর মোহাম্মদ মীর, সাং-শম্ভুগঞ্জ, খানা-কোতায়ালী, ৩ জহিরুল ইসলাম (৩৬), পিতা-জয়নাল আবেদীন, সাং-ঝুলুয়া, থানা-নান্দাইল, সর্ব জেলা-ময়মনসিংহদের সাথে নিয়ে গেলে অজ্ঞাতনামা ১০/১২ বিবাদীরা টেন্ডার বক্সের সামনে দাড়িয়ে থাকে। তখন আমরা টেন্ডার বক্সে টেন্ডার জমা দিতে গেলে বিবাদীরা আমাদের বাঁধা প্রদান করে। তখন আমরা বাঁধা প্রদান করার কারন জিজ্ঞাসাবাদ করিলে বিবাদীরা আমাদের উপর ক্ষিপ্ত হয়ে আমাদের অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে। তখন আমরা বিবাদীদের গালিগালাজ করতে নিষেধ করলে বিবাদীরা আমার হাতে থাকা টেন্ডার জমা দেওয়ার দরপর জোর পূর্বক কেড়ে নিয়ে ছিড়ে ফেলে এবং হুমকী দিয়ে বলে যে, আজ এখানে টেন্ডার জমা দিলে আমাদেরকে সময় সুযোগমত পেলে প্রানে মেরে লাশ গুম করে ফেলবে। তখন আমরা টেন্ডার জমা না দিয়ে ভয়ে চলে আসি এবং
সওজ,সড়ক বিভাগ সহ ময়মনসিংহ কোতোয়ালী মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করি।

দরপত্রের শিডিউল জমা দানে বাঁধা অজ্ঞাত ১০/১২ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ এর
সত্যতা নিশ্চিত করে কোতোয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মাইন উদ্দিন বলেন, অভিযোগ পেয়েছি ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Share & Like
Share & Like